ক্যান্সার

ব্লাড ক্যান্সারের লক্ষণ সম্পর্কে জানুন ও সঠিক চিকিৎসা নিন

ব্লাড ক্যান্সার শব্দতেই আতঙ্ক জড়িত।বর্তমানে উন্নত চিকিৎসার কারণে মানুষের মনে ব্লাড ক্যান্সারের ভীতিটা আর আগের মত নেই।  ব্লাড ক্যান্সারের লক্ষণ সম্পর্কে জানা আমাদের জরুরী। তাহলে ব্লাড ক্যান্সার থেকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ হওয়া সম্ভব।

০১.ব্লাড ক্যান্সার কী?

ব্লাড ক্যান্সার হল এক ধরনের ক্যান্সার যা রক্ত ​​কণিকার উৎপাদন ও কার্যকারিতার সাথে সম্পর্কিত। এটি ঘটে যখন রক্তের কোষের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটে, যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার, রক্তপাত নিয়ন্ত্রণ এবং শরীরের টিস্যুতে অক্সিজেন সরবরাহ করার শরীরের ক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে পারে। লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা এবং মাইলোমা সহ বিভিন্ন ধরণের ব্লাড ক্যান্সার রয়েছে।

০২.ব্লাড ক্যান্সার কত প্রকার?

ব্লাড ক্যান্সারের তিনটি প্রধান ধরন রয়েছে:

লিউকেমিয়া: রক্ত ​​এবং অস্থি মজ্জার একটি ক্যান্সার, যেখানে অস্বাভাবিক শ্বেত রক্ত ​​​​কোষ তৈরি হয় এবং স্বাভাবিক রক্ত ​​​​কোষের উৎপাদনে হস্তক্ষেপ ঘটে।

লিম্ফোমা: লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমের একটি ক্যান্সার, যেখানে অস্বাভাবিক লিম্ফোসাইট (এক ধরনের শ্বেত রক্তকণিকা) সংখ্যাবৃদ্ধি করে এবং টিউমার গঠন করে।

মাইলোমা: প্লাজমা কোষের ক্যান্সার, যা এক ধরনের শ্বেত রক্তকণিকা যা অ্যান্টিবডি তৈরি করে। মায়লোমায়, অস্বাভাবিক প্লাজমা কোষগুলি অনিয়ন্ত্রিতভাবে সংখ্যাবৃদ্ধি করে, যা অ্যান্টিবডিগুলির অতিরিক্ত উৎপাদন এবং টিউমার গঠনের দিকে পরিচালিত করে।

০৩.লিউকেমিয়া ও ব্লাড ক্যান্সারের পার্থক্য

লিউকেমিয়া হল এক ধরনের রক্তের ক্যান্সার যা রক্ত ​​তৈরিকারী টিস্যু যেমন অস্থি মজ্জা এবং লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমকে প্রভাবিত করে, যার ফলে শ্বেত রক্তকণিকার অস্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটে। অন্যদিকে, রক্তের ক্যান্সার একটি শব্দ যা রক্ত, অস্থি মজ্জা বা লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমকে প্রভাবিত করে এমন বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারকে অন্তর্ভুক্ত করে। রক্তের ক্যান্সারের মধ্যে রয়েছে লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা এবং মাইলোমা। যদিও লিউকেমিয়াকে বিশেষভাবে শ্বেত রক্তকণিকার অস্বাভাবিক বৃদ্ধির দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, অন্যান্য ধরনের রক্তের ক্যান্সারে লাল রক্ত ​​কণিকা, প্লেটলেট বা লিম্ফোসাইটের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি জড়িত থাকতে পারে। সুতরাং, লিউকেমিয়া হল একটি নির্দিষ্ট ধরনের ব্লাড ক্যান্সার

০৪.ব্লাড ক্যান্সারের লক্ষণ

ব্লাড ক্যান্সারের লক্ষণগুলি ব্লাড ক্যান্সারের নির্দিষ্ট ধরন এবং রোগের পর্যায়ের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। এখানে ব্লাড ক্যান্সারের কিছু সাধারণ লক্ষণ রয়েছে:

  • ক্লান্তি বা দুর্বলতা
  • ওজন হ্রাস
  • ঘন ঘন সংক্রমণ বা জ্বর (38°C বা তার বেশি)
  • রাতের ঘাম
  • সহজ ক্ষত বা রক্তপাত
  • বর্ধিত লিম্ফ নোড বা প্লীহা
  • পেটে ব্যথা বা পূর্ণতার অনুভূতি
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • হাড়ের ব্যথা বা জয়েন্টে ব্যথা
  • ত্বকে ফুসকুড়ি বা চুলকানি
  • শ্বাসকষ্ট 
  • শরীরের হাড়, জয়েন্ট এবং পেটে ব্যথা 
  • ফ্যাকাশে হয়ে যাওয়া
  • ত্বকে লাল দাগ পড়া

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই লক্ষণগুলি অন্যান্য অবস্থার কারণেও হতে পারে, তাই আপনি যদিএ সম্পর্কিত লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য। প্রাথমিক রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা রক্তের ক্যান্সারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের ফলাফলকে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করতে পারে।

০৫.ব্লাড ক্যান্সার প্রতিরোধের উপায় 
  • কর্মস্থলে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখার জন্য নিয়মিত হালকা শারীরিক কাজ করা
  • স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে আপনার স্বাস্থ্য বজায় রাখা সম্ভব। প্রতিদিন সবজি ও ফলমূল, প্রোটিন উপস্থাপন করা মাংস, ডেয়ারী পণ্য ও পর্যাপ্ত পানি খেতে হবে। 
  • প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণের মধু পান করা ভাল। তবে মধু নিয়মিত পরিমাণ থেকে বেশি খাওয়ার মানে নয়। পরিমিত পানি পান করা সহজ কিন্তু বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
  • কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপি একসাথে যেসব রোগীকে দিতে হয় তাদের ক্ষেত্রে ব্লাড ক্যান্সারের প্রবণতা প্রায় ২০ গুণ বেড়ে যেতে পারে 
  • নিয়মিত বিনোদন এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন
  • তামাক,ধূমপান ও জর্দা পরিহার করতে হবে
  • এক্সন-রে এবং নিউক্লিয়ার বিভাগের কাজ করার সময় বিশেষ ভাবে সচেতনতা অবলম্বন করতে হবে আমাদেরকে
  • সব ধরণের তেজস্ক্রিয়তা পরিহার করতে হবে
  • রাসায়নিক দ্রব্যাদির সংস্পর্শ একদমি পরিহার করতে হবে
০৬.ব্লাড ক্যান্সারের রোগী কতদিন বাঁচে

ব্লাড ক্যান্সার রোগীর আয়ু বিভিন্ন কারণের উপর নির্ভর করে যেমন ক্যান্সারের ধরন এবং পর্যায়, রোগীর বয়স, সামগ্রিক স্বাস্থ্যের অবস্থা এবং চিকিৎসার প্রতিক্রিয়া। চিকিৎসা প্রযুক্তি এবং চিকিৎসার বিকল্পগুলির অগ্রগতির সাথে, অনেক ব্লাড ক্যান্সার রোগী নির্ণয়ের পরে কয়েক বছর বেঁচে থাকতে পারে ।

০৭.ব্লাড ক্যান্সার কি ভাল হয়

রক্তের ক্যান্সারের পূর্বাভাস, যা হেমাটোলজিক ক্যান্সার নামেও পরিচিত, রোগের নির্দিষ্ট ধরন এবং পর্যায়ের উপর নির্ভর করে। কিছু ধরণের রক্তের ক্যান্সার, যেমন নির্দিষ্ট ধরণের লিউকেমিয়া এবং লিম্ফোমা, কেমোথেরাপি, রেডিয়েশন থেরাপি, টার্গেটেড থেরাপি, এবং/অথবা অস্থি মজ্জা বা স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যেতে পারে এবং সম্ভাব্যভাবে নিরাময় করা যেতে পারে। যাইহোক, অন্যান্য ধরনের ব্লাড ক্যান্সার, যেমন মাল্টিপল মাইলোমা, নিরাময়যোগ্য নাও হতে পারে, তবে রোগীর জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে এবং তাদের বেঁচে থাকা বাড়ানোর জন্য চিকিৎসা পরিচালনা করা যেতে পারে।ব্লাড ক্যান্সারের লক্ষণ সম্পর্কে জানা জরুরী। ব্লাড ক্যান্সারের নির্দিষ্ট ধরন এবং পর্যায়ের উপর ভিত্তি করে চিকিৎসার সর্বোত্তম কোর্স নির্ধারণ করতে একটি মেডিকেল টিমের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করা গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুন-
ক্যান্সার এর লক্ষণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *