হেপাটাইটিস

হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার এবং পুষ্টির পরামর্শ

হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার এবং পুষ্টির পরামর্শ সম্পর্কে আমাদের জানা প্রয়োজন। হেপাটাইটিস বি রোগীদের জন্য কোন নির্দিষ্ট খাবার নেই, তবে একটি স্বাস্থ্যকর ও সম্পূর্ণ খাদ্যপ্রণালী পালন করা গুরুত্বপূর্ণ। এই খাদ্যপ্রণালী তাদের ইমিউন সিস্টেম সমর্থন করতে ও স্বাস্থ্য উন্নয়ন করতে সাহায্য করবে। এজন্যে হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার এর বিষয়ে আরোও সচেতনতা বাড়াতে হবে।

০১.হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার

নিম্নলিখিত কিছু সাধারণ খাদ্য পরামর্শ হলো:

  1. ফল এবং সবজি বেশি খেতে হবে: ফল এবং সবজি ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে অভিভাবক যা ইমিউন সিস্টেম সমর্থন করতে ও লিভার স্বাস্থ্য উন্নয়ন করতে সাহায্য করবে।
  2. লিন প্রোটিন উপাদান নিবেন: লিন প্রোটিন উপাদান স্বাস্থ্যকর খাদ্যের উৎস যেমন মাছ, মুরগি, ডাল উপাদান গ্রহণ করা যেতে পারে।
  3. প্রসেস করা খাবার এবং মিষ্টি পরিহার করা উচিত: প্রসেস করা খাবার এবং মিষ্টি লিভারের জন্য ক্ষতিকর এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে
  4. অ্যালকোহল সেবন করা উচিত নয়: অ্যালকোহল লিভার এর জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকর এবং হেপাটাইটিস বি এর প্রভাব দ্বারা আরও খারাপ হতে পারে। তাই সেবন করা উচিত নয়।
  5. পরিবেশের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা উচিত: ভাল খাদ্য গ্রহণ করা যেতে পারে না যদি আপনি খাদ্য উপাদানের সাথে পুষ্টি পানি এবং সুস্থ পরিবেশ না বজায় রাখেন। সুস্থ খাবার গ্রহণ করার আগে হাত ধোয়া এবং খাদ্য প্রস্তুত সংক্রান্ত নিয়মাবলী অনুসরণ করা উচিত।

আপনার হেলথকেয়ার প্রদানকারী এবং একজন রেজিস্টার্ড ডায়েটিশিয়ানের সাথে কথা বলে একটি ব্যক্তিগতকৃত পুষ্টি পরামর্শ তৈরি করতে হবে।

ডায়েট চার্ট হেপাটাইটিস বি-হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার

০২.ডায়েট চার্ট হেপাটাইটিস বি

হেপাটাইটিস বি আক্রান্ত ব্যক্তিদের লিভারের কার্যকারিতা এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য গুরুত্বপূর্ণ। হেপাটাইটিস বি আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এখানে একটি ডায়েট চার্ট পরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়েছে:

সকালের নাস্তা:

  • এক গ্লাস পানিতে লেবু ও পুদিনা পাতা মিশিয়ে দিন শুরু করুন।
  • কম চর্বিযুক্ত দুধ বা দই এবং তাজা ফল যেমন বেরি বা কাটা কলা।

মধ্য সকালের নাস্তা:

  • এক মুঠো বাদাম (যেমন বাদাম, আখরোট বা কাজু) বা একটি ছোট টুকরো ফল (যেমন আপেল বা নাশপাতি)।

দুপুরের খাবার:

  • শাক, টমেটো, শসা, গাজর এবং গ্রিলড চিকেন বা মাছ সহ একটি সালাদ।
  • বাদামী চাল বা কুইনোয়ার একটি ছোট বাটি।
  • পুরো শস্যের রুটির টুকরো।

বিকালে খাবার:

  • স্ট্রবেরি বা কিউইয়ের মতো টুকরো টুকরো ফল সহ এক কাপ কম চর্বিযুক্ত দই বা পনির।

রাতের খাবার:

  • ভাজা বা বেকড মাছের সাথে ভাপানো সবজি (যেমন ব্রকলি, ফুলকপি এবং অ্যাসপারাগাস)।
  • একটি ছোট বেকড মিষ্টি আলু বা মিশ্র সবুজ শাক এবং চেরি টমেটো সহ একটি সাইড সালাদ।
  • ঘুমানোর আগে এক গ্লাস গরম পানিতে লেবু দিয়ে নিন।

অ্যালকোহল এবং চর্বি, চিনি এবং লবণ বেশি থাকে এমন খাবার এড়ানো গুরুত্বপূর্ণ। হেপাটাইটিস বি রোগীর খাবার এর ক্ষেত্রে কিছু সীমাবদ্ধত রয়েছে যেমন ভাজা খাবার, প্রক্রিয়াজাত খাবার, চিনিযুক্ত পানীয় এবং উচ্চ চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার।

০৩.হেপাটাইটিস বি এর জন্য কোন ভিটামিন ভালো

হেপাটাইটিস বি রোগীদের জন্য প্রধানতঃ নিম্নলিখিত ভিটামিনগুলি খুব গুরুত্বপূর্ণ:।

১.ভিটামিন এ: একটি শক্তিশালী অক্সিডেন্ট নির্ণয়ক যা রোগীর লিভারে রয়েছে। এটি লিভারের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন যা রোগীদের সেবন করা উচিত। ভিটামিন এ রয়েছে কালোজিরা, পালং শাক, কাজু বাদাম, মুরগির ডিম এবং গাজরে।

২.ভিটামিন সি: একটি শক্তিশালী অক্সিডেন্ট নির্ণয়ক যা সংক্রমণ দমন করতে সাহায্য করে। এটি লিভারের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি ভিটামিন। ভিটামিন সি রয়েছে কমলা, লেবু, টমেটো, স্পিনাচ এবং ফলমূলের উপাদান সহ অন্যান্য খাবারে।

৩.ভিটামিন ডি: হেপাটাইটিস বি রোগীদের জন্য ভিটামিন ডি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ভিটামিন। এটি ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস স্তর বজায় রাখার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন ডি আপনার হাড় ও দাঁতের স্থিতি উন্নয়নে সহায়তা করে এবং সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যকর প্রতিক্রিয়ায় সহায়তা করে।

সাধারণত হেপাটাইটিস বি রোগীদের উপর বেশি দীর্ঘস্থায়ী সূর্যের আলোর কারণে ভিটামিন ডি স্তর কম হতে পারে। তাই হেপাটাইটিস বি রোগীদের জন্য ভিটামিন ডি প্রোটিন, সামগ্রী ও আয়রন সহ অন্যান্য খাদ্য উপাদানসমূহে পাওয়া যায়।

৪.ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স: এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন যা লিভার স্বাস্থ্যকে উন্নত করে এবং স্বাস্থ্যকর চর্চা বা ক্লিনিক্যাল চিকিৎসার সময় রোগীদের নির্দেশ দেওয়া হয়। এটি গাজর, পালং শাক, কলমি শাক, লাল মরিচ, অন্যান্য সবজি এবং মাংসে পাওয়া যায়।

৫.ফোলিক এসিড: এটি রক্ত উৎস উন্নয়নে সহায়তা করে এবং স্বাস্থ্যকর চর্চা বা ক্লিনিক্যাল চিকিৎসার সময় রোগীদের নির্দেশ দেওয়া হয়। ফোলিক এসিড রয়েছে পালং শাক, মাংস, চিংড়ি, বাদাম, এবং দুধ এবং ডেয়রি উপাদান সহ অন্যান্য খাবারে

আপনার খাদ্যতালিকায় কোনো উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন করার আগে সর্বদা একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদার বা একজন নিবন্ধিত খাদ্য বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করতে ভুলবেন না, বিশেষ করে যদি আপনার হেপাটাইটিস বি-এর মতো অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্যগত অবস্থা থাকে।

আরো পড়ুন-
হেপাটাইটিস বি ভ্যাকসিন দাম-আপনি জানেন কি ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *